বাংলা সিনেমার একাল সেকাল…

একটা সময় ছিলো যখন প্রতি শুক্রবার দুপুরে আমরা সবাই সাদাকালো টিভি সেটের সামনে বসে অপেক্ষা করতাম সিনেমা শুরু হওয়ার। ছোট বড় অসংখ্য মানুষ সিনেমা দেখার জন্য জড়ো হতো৷ ঘরে যায়গা না হলে উঠোনে টিভি সেট করা হতো। মাটিতে তেরপল বিছিয়ে সবাই বসতাম। ৫-৬মিনিট সিনেমা দেখানোর পর ৫-৬মিনিট বিজ্ঞাপন দেখানো হতো। এতে আমাদের আগ্রহ একটুও কমত না৷
সিনেমা হলে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট নিতে হতো, পাওয়া যেতো না অনেকসময়।
সিনেমার প্রতি মানুষের টান ছিলো। টিভি হোক বা সিনেমা হল, দর্শকের অভাব ছিলোনা৷

সময়ের সাথে প্রযুক্তির বিকাশ ঘটেছে। সিনেমা নির্মাণ কাজে যুক্ত হয়েছে আধুনিক সব যন্ত্রপাতি। পরিবর্তিত হয়েছে মানুষের রুচি, সেই সাথে সিনেমার গল্পও।

একসময় সিনেমা নিয়ে কাজ করতেন সব গুণী ব্যক্তিরা। যতো ভালো সিনেমা তৈরি হয়েছে এদেশে, সেসব তাদের সময়েই। তারপর ব্যবসায়ীরা সিনেমা বানানো শুরু করে আর্থিক মুনাফা লাভের উদ্দেশ্যে। সিনেমার কদর কমতে শুরু করে তখন থেকেই।

সিনেমা তৈরির কাজে আধুনিক যন্ত্রপাতি যোগ হওয়ার সাথে পরিবর্তন এসেছে দর্শকদের সিনেমা দেখার মাধ্যমেও। কম্পিউটার ও স্মার্টফোনের কল্যানে ঘরে বসে ইচ্ছেমতো সময়ে পছন্দমতো সিনেমা দেখা যায়৷ ফলে দর্শক কমছে সিনেমা হল গুলোতে।

দেশের বেশিরভাগ ব্যবসা সফল সিনেমা তৈরি হয়েছিলো উনিশ শতকে। সিনেমায় অশ্লীলতা, হলের বাজে পরিবেশ, বাসায় বসে সিনেমা দেখার সুবিধা ও বিদেশী সিনেমার সহজলভ্যতার জন্য এখনকার বেশিরভাগ সিনেমা ব্যবসা সফল হতে পারছেনা৷ তাছাড়া আগেকার দিনে সিনেমা ভালো হোক বা খারাপ, মানুষ হলে গিয়ে সিনেমা দেখে তারপর আলোচনা-সমালোচনা করতো।

ইতিমধ্যে দেশে অনেকগুলো সিনেমা হল বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷ কমেছে বছরে সিনেমা তৈরির গড় সংখ্যা। চালু হল গুলোরও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে বাজে পরিবেশ আরও বাজে হচ্ছে। এরকম চলতে থাকলে দেশের চালু সিনেমা হল গুলোও বন্ধ হয়ে যাবে। বেকার হয়ে যাবে এগুলার সাথে জড়িত সবাই। জাতি হারাবে বিনোদনের অন্যতম এক মাধ্যম।

এরকম পরিস্থিতিতে দরকার মানসম্মত সিমেমা, সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা আর সিনেমা খাতে জড়িত সবার একাগ্রতা। শুধুমাত্র ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য সিনেমা তৈরি করা যাবেনা৷
এতে দেশের সিনেমা জগৎ আবারো তাদের সোনালী সময় ফিরে পেতে পারে। অবশ্য প্রযুক্তির এই যুগে মানুষের মনে দেশীয় সিনেমার স্থান করে নেয়াটা অনেক কঠিন হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top