তরুণদের দৃষ্টিতে বঙ্গবন্ধু…

স্বাধীনতার পূর্ববর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু ছিলেন অনেক বেশি জনপ্রিয়। ৬৯এর নির্বাচন, স্বাধীনতার ঘোষণা ও আন্দোলনের ইতিহাস থেকে এই ব্যাপারে ধারণা পাওয়া যায়৷ স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ের ইতিহাস ঘাটলে বুঝা যায় যে, ঐ সময়ে বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তা হ্রাস পেতে থাকে৷ এর অনেকগুলো যুক্তিযুক্ত কারণও রয়েছে।

বাঙালি কাউকে বেশিদিন ক্ষমতায় দেখতে পছন্দ করেনা৷ দেশে অনুষ্ঠিত সকল সুষ্ঠু নির্বাচনের ফলাফল ঘাঁটলে এব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তা হ্রাস পাওয়ার অন্যতম কারণ এটা।

বর্তমান সময়ের বেশিরভাগ তরুণ বঙ্গবন্ধুর ব্যাপারে অজ্ঞ। অনেকের ঘরের দেয়ালে বঙ্গবন্ধুর ছবি টাঙানো থাকে, ডেস্কে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বই থাকে। তবুও বেশিরভাগ তরুণ অজ্ঞ কারণ, বঙ্গবন্ধুর ছবি টাঙিয়ে রাখা আর বঙ্গবন্ধুর লিখা বই ডেস্কে সাজিয়ে রাখাটা এখনকার সময়ে নিজেকে ক্লাসি প্রমাণ করা আর রাজনৈতিক ফায়দা লুটবার মাধ্যম।

ছাত্রলীগের কল্যাণে তরুণদের মুখে “জয় বঙ্গবন্ধু” শ্লোগান প্রায়শই শোনা যায়৷ এই স্লোগান বঙ্গবন্ধুর জন্য নয়৷ এই স্লোগান আসলে ভাইদের জন্য। বড় পদে থাকা ভাইদের সবকিছুতে সহমত পোষণ করে ও ভাইদের কথা মতো কাজ করে মন পাওয়াই তাদের উদ্দেশ্য।
এতে হেলমেট-লাইসেন্স বিহীন অবস্থায় মোটরবাইক নিয়ে ট্রাফিক পুলিশের কাছে ধরা পড়লে ভাইদের নাম ভাঙিয়ে ছাড়া পাওয়া যায় ও রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে নির্বিঘ্নে মেয়েদের উত্যক্ত-বিরক্ত করা যায়।

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার পূর্ববর্তী সময়কার বিভিন্ন কাজকর্ম নিয়ে আওয়ামী সমর্থকদের অনেক মাতামাতি করতে দেখা যায়। অথচ স্বাধীনতার পরবর্তী সময়কার কাজকর্ম ও পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করতে তাদের খুব একটা দেখা যায়ন৷ হয়ত কোথাও কোনো বাধা আছে। অন্তত আমার সেরকমই মনেহয়।

বঙ্গবন্ধু নিঃসন্দেহে সবার কাছে শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি। সেই শ্রদ্ধাটা যেন রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে না হয়।
আর একজন মানুষ সবদিক থেকে পারফেক্ট হয়না…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top